ভিসা

ভিসা ল্যাটিন ফ্রেজ চার্টার ভিসার একটি সংক্ষিপ্ত রূপ যার অর্থ “নথি দেখা হয়েছে।” ভিসা নথির আদলে এক ধরনের অনুমতি যা একজন অ নাগরিককে ভ্রমণ, গবেষণা বা ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে একটি দেশে প্রবেশের অনুমোদন দেয়। ক্ষমতায়ন একটি পৃথক নথি হতে পারে,কিন্তু এটি সাধারণভাবে পাসপোর্টের উপর একটি স্ট্যাম্প।

ভিসা ফি: একটি ভিসা ফি চার্জ করা হয় এবং এটি সাধারণত পারস্পরিক। উদাহরণস্বরূপ, যদি একটি দেশ ভিসার জন্য ৫0 ডলার চার্জ করে,তাহলে অন্যান্য দেশে একই পরিমাণ চার্জ করে থাকে।

একটি ভিসা পাবার কারণ

ভিসা ছাড়া আপনি একটি অন্য দেশে প্রবেশ করতে পারবেন না। ভিসা প্রদানের কিছু কারণ হল:

• বিদেশে ছুটি কটাতে

• বিদেশী দেশে অধ্যয়ন

• ভিসা প্রদানকারী দেশে কাজের জন্য

• হোস্ট দেশে ব্যবসার জন্য

• বিদেশে চিকিৎসার জন্য

ভিসার ধরন

সব দেশ বিভিন্ন নামে বিভিন্ন ধরনের ভিসা প্রদান করে। যদিও দেশ থেকে দেশে ভিসার ধরন ভিন্ন বেশী প্রচলিত কিছু হল

পর্যটন ভিসা: এটি শুধুমাত্র অবসর ভ্রমণের জন্য একটি সীমিত সময়ের ভিসা ।কোনো ব্যবসা কর্মকান্ডের জন্য এটি কেউ ব্যবহার করতে পারবেন না। সৌদি আরব হজ্বযাত্রীদের জন্য হজ্বযাত্রা ভিসা প্রদান করে।

ট্রানজিট ভিসা: এই ভিসা মাত্র ৫ দিনের জন্য বৈধ এবং এমনকি কিছু দেশে আরও কম। এটি দেশের মধ্য দিয়ে একটি তৃতীয় গন্তব্যে যাবার জন্য প্রদান করা হয়।

ব্যবসা ভিসা: এই ভিসা দর্শনকৃত দেশের বাণিজ্যিক কার্যক্রমে জড়িতদের প্রদান করা হয়। এটি সাধারণত স্থায়ীভাবে থাকার জন্য একটি ওয়ার্ক ভিসা।

অস্থায়ী ওয়ার্ক ভিসা: স্বাগতিক দেশে কর্মসংস্থানের জন্য এই ভিসা প্রদান করা হয়। এটি একটি ব্যবসায়িক ভিসার চেয়ে বেশি সময়সীমার জন্য বৈধ এবং সেজন্য এটা অর্জন করাও কঠিন।

স্পাউজ ভিসা: একটি নির্দিষ্ট দেশের একজন বাসিন্দা বা নাগরিকের স্বামী/স্ত্রী বা কার্যত অংশীদারকে এই ভিসা দেয়া হয়, যাতে দম্পতি ঐ দেশে স্থায়ীভাবে বসবাস করতে পারে।

ছাত্র ভিসা: এই ভিসা আবেদনকারীকে স্বাগতিক দেশর একটি উচ্চতর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যয়নের জন্য দেয়া হয়।

কূটনৈতিক ভিসা: এই ভিসা কূটনৈতিক পাসপোর্ট ধারণকারীদের প্রদান করা হয়।

সাংবাদিক ভিসা: সংবাদ সংস্থার সঙ্গে যারা ভ্রমণ করে তাদের জন্য কয়েকটি দেশ এ ধরনের ভিসা দিয়ে থাকে।

অভিবাসী ভিসা: এই ভিসা প্রদানকারী দেশে অভিবাসনের জন্য প্রদান করা হয়। এটি একটি একক যাত্রার জন্য প্রদান করা হয়,যাকে পরে একটি স্থায়ী বাসিন্দা সনাক্তকরণ প্রদান কার্ড করা হয়।

অন এরাইভেল ভিসা: এটি প্রবেশ পোর্টে প্রদান করা হয়। এটি প্রয়োজনীয় ভিসা থেকে ভিন্ন, এমনকি তারা ইমিগ্রেশন মধ্য দিয়ে পাস করার চেষ্টা করার আগে ভিজিটররা এ ভিসা অর্জন করতে পারেন।

বিয়ে ভিসা: যেসকল ব্যক্তি হোস্ট দেশের নাগরিককে বিয়ে করতে চায় তাদের একটি সীমিত সময়ের জন্য এ ভিসা দেয়া হয়।

ওয়ার্কিং হলিডে ভিসা:
ওয়ার্কিং হলিডে ভিসা সাধারণত তাদের দেয়া হয় যাদের বয়স ১৮ থেকে ৩0 বছরের মধ্যে এবং এটি এক বা দুই বছরের জন্য বৈধ। তবে কাজের ধরণ এবং সময়কালের ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধতা থাকে।

নিম্নলিখিত দেশগুলো ওয়ার্কিং হলিডে ভিসা অফার করে:

১.আর্জেন্টিনা
২. অস্ট্রেলিয়া
৩. বেলজিয়াম
৪. কানাডা
৫. চিলি
৬. সাইপ্রাস
৭.চেক প্রজাতন্ত্র
৮.ডেনমার্ক
৯. এস্তোনিয়া
১0. ফিনল্যান্ড
১১. ফ্রান্স
১২ জার্মানি
১৩ হংকং
১৪. আয়ারল্যান্ড
১৫. ইতালি
১৬. জাপান
১৭. মাল্টা
১৮. নেদারল্যান্ড
১৯. নিউজিল্যান্ড
২0. নরওয়ে
২১.দক্ষিণ কোরিয়া
২২. সুইডেন
২৩.তাইওয়ান
২৪. যুক্তরাজ্য
২৫. মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

ভিসা অব্যাহতি

ভিসা অন্য দেশে ভ্রমণের ক্ষেত্রে একজন ব্যক্তির জন্য বাধ্যতামূলক, যদিও এখন বিভিন্ন স্কিম বিভিন্ন দেশের জন্য ভিসা ছাড়ের অনুমতি দেয়। কিছু ছাড় হল:

• ইইউ সদস্য দেশগুলোর সব নাগরিক ইইউ ভুক্ত দেশগুলোতে ভিসা ছাড়া ভ্রমণ এবং থাকতে পারবেন।

• মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভিসা ওয়েবার প্রোগ্রামে ৩৮টি দেশের নাগরিকরা ভিসা ছাড়া মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ভ্রমণ করতে পারবেন।

• উপসাগরীয় সহযোগিতা কাউন্সিলের কোন নাগরিক অন্য কোন জিসিসি সদস্য রাষ্ট্রে প্রবেশ এবং প্রয়োজনীয় সময় পর্যন্তত থাকতে পারবেন।

• অবাঞ্ছিত এলিয়েনস হিসাবে আইন দ্বারা সংজ্ঞায়িত ব্যক্তি ব্যতীত ইকোয়াস সদস্য রাজ্যের সব নাগরিক, প্রবেশ এবং সর্বোচ্চ ৯0 দিন সময়ের জন্য কোনো সদস্য রাষ্ট্রে ভিসা ছাড়া থাকতে পারবে। শুধু একটি বৈধ ভ্রমণ নথি এবং আন্তর্জাতিক টিকা সার্টিফিকেট প্রয়োজন হয়।

• কমনওয়েলথের মধ্যে কিছু কিছু দেশে অন্যান্য কমনওয়েলথ দেশের নাগরিকদের পর্যটন ভিসার প্রয়োজন হয় না।

• পূর্ব আফ্রিকান কমিউনিটি সদস্য রাষ্ট্রের নাগরিকদের সদস্য রাষ্ট্রে ঢোকার জন্য কোনো ভিসার প্রয়োজন হবে না।

• দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া দেশগুলোর সংস্থার মধ্যে কিছু কিছু দেশে দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া নেশনস অ্যাসোসিয়েশনের কিছু দেশে নাগরিকদের পর্যটন ভিসার প্রয়োজন হয় না। মায়ানমার ছাড়া ,তার নাগরিকদের ১0 টি দেশের মধ্যে ৭ টিতে ভিসা প্রয়োজন হয়।

• আর্মেনিয়া ও উজবেকিস্তান, ভিসা মুক্ত পর্যটক হিসাবে প্রবেশ করতে CIS সদস্য রাষ্ট্রের নাগরিকদের অনুমতি দেয়, তুর্কমেনিস্তান ছাড়া, (এবং উজবেকিস্তানে প্রবেশের ক্ষেত্রে তাজিকিস্তান)।

ভিসা প্রত্যাখ্যানের কারণ

ভিসা প্রত্যাখ্যানের বিভিন্ন কারণ আছে।একটি ভিসা যেসকল ভিত্তিতে প্রত্যাখ্যান করা হয়ে থাকে:

• তার আবেদন জালিয়াতি বা মিথ্যা বর্ণনা

• ক্রিমিনাল রেকর্ড বা অপরাধের অভিযোগ স্থগিত আছে

• নিরাপত্তা ঝুঁকি

• বসবাস বা দেশে স্থায়ীভাবে কাজ করতে ইচ্ছুক ব্যক্তি যথাভাবে একটি অভিবাসী বা কাজের ভিসার জন্য আবেদন না করলে

• ভ্রমণের কারণ যথেষ্ট স্ট্রিং না হলে

• কোনো দৃশ্যমান কারন না থাকলে

• স্বাগতিক দেশে যাবার যথাযত যাতায়াতের ব্যবস্থা না দেখাতে পারলে

• তার বাসের সময় একটি বৈধ স্বাস্থ্য বা ভ্রমণ বীমা না থাকলে

• একটি ভাল নৈতিক চরিত্র না থাকলে

• অতীব তড়িঘড়ি করে আবেদন করা হলে

• তাদের আগের ভিসা আবেদন (গুলি) প্রত্যাখ্যাত ছিল

• যাদের সাথে স্বাগতিক দেশের খারাপ বা সম্পর্ক নেই এমন একটি দেশের নাগরিক হলে

• এইডস/এইচআইভি মত সংক্রামক রোগ আছে

• পূর্বে ভিসা নিয়ম লঙ্ঘন করেছে

• খুব শীঘ্রই শেষ হয়ে যাবে এমনএকটি পাসপোর্ট হলে

• একটি বৈধ কারণ ছাড়া পূর্বে প্রদানকৃত ভিসা ব্যবহার না করলে (যেমন একটি পরিবারের জরুরী কারণে একটি ট্রিপ বাতিল)

• (অ অভিবাসীদের জন্য) ফিরে আসার অভিপ্রায় প্রদর্শন করতে ব্যর্থ হলে

Share Button
পড়া হয়েছে 2,421 বার

Back to Top